মালয়েশিয়ার পার্কিং সিস্টেম নিয়ে রয়েছে বিস্তর সমস্যা !!!

Sharing is caring!

মালয়েশিয়া দক্ষিন-পূর্ব এশিয়ার একটি উন্নত দেশ।মালয়েশিয়ার ট্রাফিক সিস্টেম ত্রিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে উন্নত প্রযুক্তির মধ্যে সেরা হিসেবে বিশ্ব দরবারে দাঁড়িয়ে আছে।মালয়েশিয়ার উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে তথ্য ব্যবস্থার সাহায্যে রাস্তায় রাস্তায় ট্রাফিক নিয়ন্ত্রন করা হচ্ছে।ইন্টেলিজেন্ট ট্রান্সপোর্টেশন সিস্টেম (আইটিএস) এবং অ্যাডভান্সড ট্র্যাফিক ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এটিএমএস) এর প্রযুক্তি রেফারেন্স ব্যবহারের মাধ্যমে পরিবহন ব্যবস্থা অত্যাধুনিক হয়েছে মালেয়শিয়াতে।একই সিস্টেমের মাধ্যমে ইন্টেলিজেন্ট ভেহিক্যাল হাইওয়ে সিস্টেম (আইভিএইচএস),যোগাযোগ এবং তথ্য সরবরাহের জন্য তথ্য সরবরাহ করে বিভিন্ন ভাবে মালেয়শিয়াতে দুর্ঘটনা হ্রাস করতে ব্যবহার করা হচ্ছে।

মালেয়শিয়াতে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে পার্কিং সিস্টেমগুলি ব্যবহার করার সময় দেখা যায় সম্পূর্ণ সিস্টেম স্বয়ংক্রিয় এবং যার কারনে সাধারন মানুষ খুব দ্রুত সহজভাবে নিচ্ছে এবং সুবিধা পাচ্ছে।মালয়েশিয়ায় বৃহত্তম পার্কিং এলাকায় পার্কিং সিস্টেম ৩০,০০০ গাড়ি পরিচালনা করে।তাছাড়া বিভিন্ন শপিংমল,সিনেমা হল এবং অফিস তো আছেই যেখানে পার্কিং লট আছে এবং সেসকল স্থানে গাড়ি পার্কিং পরিচালনা করা হয়।

মালয়েশিয়ার ড্রাইভারের অনুভূতিগুলি মূল্যায়ন এবং গাড়ি চালানোর পাশাপাশি পার্কিংয়ের পরিষেবায় একটি জরিপ করা হয়।জরিপে দেখা যায়, গাড়ীর মালিক যারা তারা প্রায় সময় পার্কিং নিয়ে সমস্যায় পড়েন।মালয়েশিয়ায় পার্কিং স্পট খুঁজে প্রায় ৭৪% গাড়ির মালিক।

মালেয়শিয়ায় পার্কিং নিয়ে যেসব সমস্যা হয় –

১.আপনি পার্কিং করতে ভুলে গেছেন

মালেয়শিয়ার পার্কিং স্পট খুঁজে পাওয়া খুব সমস্যার একটি বিষয়।বিশেষ করে সাধারন জায়গায় পার্কিং স্পট নেই বললেই চলে।আর আপনি বরাবরই ভুলে যাবেন পার্কিং করতে।যার কারনে পার্কিং সাধারন জায়গায় দেখা যায় বিভিন্ন জায়গায় জায়গায় করা হয় এবং এটি মালেয়শিয়ায় প্রায় দৈনন্দিন ঘটনা।

২.পার্কিং টিকেট হারানো

সাধারনত পার্কিং করার পর অনেক জায়গায় টোকেন বা টিকেট দেওয়া হয়।কল্পনা করুন যে, আপনি আপনার কাজ শেষে পরবর্তী

অ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য দৌড়ে যাচ্ছেন,কিন্তু আপনার গাড়িতে পৌঁছানোর আগে আপনার পার্কিং টিকেটটি হারিয়ে গেছে।মালয়েশিয়াতে এই ধরনের ঘটনা প্রায় সময় ঘটে।মানুষ এত ব্যস্ত থাকে যে কাজের ব্যস্ততায় ভুলে যায় টোকেন বা টিকেটের কথা।আর হয়ত টোকেন বা টিকেট হারিয়ে ফেলে।আর তার জন্য মালয়েশিয়াতে কারপার্ক অফিসে একটি ফরম পূরনের মাধ্যমে জরিমানা পরিশোধ করতে হয়।

৩.পার্কিং স্পট খুঁজে পাওয়া

প্রতিদিন যারা গাড়ি নিয়ে চলাচল করে তারা স্বপ্ন দেখে নিরাপদ পার্কিং স্পটের।

দুর্ভাগ্যবশত,মালয়েশিয়ায় এটি শুধু স্বপ্নই।মালয়েশিয়ায় বাস্তবতাটি হল,নিজের বাড়ির সামনের জায়গার মত বড় স্পেস পাওয়া যায় না।যার কারনে পার্কিং করতে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় সাধারন মানুষকে।

৪. ১৫ মিনিটের জন্য রাশিং

মালেয়শিয়াতে ১৫ মিনিটের অনেক বেশি সময় লাগতে পারে,যতক্ষণ না আপনি রিংজিট পরিশোধ না করে কারপার্ক থেকে বেরিয়ে আসছেন।পার্কিং লটে লম্বা লাইন থাকলে এটি আরও বেদনাদায়ক হয়। যার কারনে মালয়েশিয়াতে আপনাকে ১৫ মিনিটের অপেক্ষা ভেঙ্গে আরও বেশি সময় অপেক্ষা করতে হতে পারে।

পার্কিং মালয়েশিয়ানদের জন্য এত ঝামেলা, যে প্রায় সকল গাড়ির মালিকদের প্রায় এক তৃতীয়াংশ (২৯%) গাড়ি এখন মালিকানাধীন নয় এবং পার্কিংয়ের পরিস্থিতি উন্নত না হলে, এই সংখ্যাটি দ্রুত ৪৮% পর্যন্ত বাড়বে বলে ধারনা করা হয়।

তবে, মালয়েশিয়ায় পার্কিং এর জন্য বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রস্তাবিত পরিষেবাগুলি গ্রহণ করতে শুরু করলে পার্কিং নিয়ে সব সমস্যা পরিবর্তন হতে পারে।

প্রকৃতপক্ষে,মালয়েশিয়ার গবেষণায় দেখা গেছে যে বিভিন্ন পার্কিং অ্যাপ প্রযুক্তি পরিষেবাগুলি ব্যবহারের সাথে সাথে, রাস্তা থেকে ৪০% পর্যন্ত বিভিন্ন জায়গা খালি হতে পারে,যেখানে আগে বেআইনি ভাবে গাড়ি পার্ক করা হত।যা বিভিন্ন স্থান, পার্ক এবং হাসপাতালগুলির জন্য সহজেই ব্যবহার করা যেতে পারে।

— মুমতাহিনা প্রমি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares